খোলা আকাশের নিচে হোটেল

প্রকাশিত: ১০:৩৬ অপরাহ্ণ, জুন ২৪, ২০২০

দরজা-জানালা নেই। তবে বিছানা ও বাতিসহ থাকার সব সুযোগ-সুবিধা আছে! অভিনব এমন সাতটি উন্মুক্ত হোটেল পাওয়া যায় সুইজারল্যান্ডে। তবে প্রতিটিতেই বিছানা কেবল একটি।

ছাদ ও দেয়াল ছাড়াই খোলা আকাশের নিচে হোটেলের ধারণা যৌথভাবে বাস্তবায়ন করেছেন সুইজারল্যান্ডের দুই উদ্ভাবক ভ্রাতৃদ্বয় ফ্রাঙ্ক ও প্যাট্রিক রিকলিন এবং উদ্যোক্তা ড্যানিয়েল শারবোনি। এগুলোর চারপাশে আছে নয়নাভিরাম প্রাকৃতিক সৌন্দর্য। রাতের বেলা আল্পস পর্বতমালা ও মিটিমিটি তারার অপূর্ব দৃশ্য উপভোগ করা যায়। তাঁবুতে থাকার মতো অনুভূতি মেলে এখানে।

উদ্যোক্তারা এই প্রকল্পকে বলছেন জিরো রিয়েল এস্টেট। অর্থাৎ অব্যবহৃত ফাঁকা জায়গায় আবাসন। তাদের ইচ্ছে, স্থানীয় ঐতিহ্যের আলোকে পুরোপুরি অন্যরকম আতিথেয়তা দেওয়া। ফ্রাঙ্ক রিকলিনের কথায়, ‘জিরো রিয়েল এস্টেটের মাধ্যমে হোটেল রুম ছাড়াই থাকার পদ্ধতি অনেকটা শ্রোতাবিহীন কিছু পরিবেশনা করার মতো।

হোটেলটির নাম ‘নুল স্টার্ন’। এর ইংরেজি হলো ‘জিরো স্টারস’। সহ-প্রতিষ্ঠাতা ড্যানিয়েল শারবোনির কথায়, ‘এটি তারকা হোটেল নয়, তবে অতিথিরা সবাই তারকা! এখানে কোনও দেয়াল নেই, শুধু অতিথি ও তাদের অভিজ্ঞতাই মূখ্য।

২০১৬ সালে সুইজারল্যান্ডের পূর্বাঞ্চল গ্রাউবুন্ডেনে একটি বিছানা দিয়ে নুল স্টার্নের যাত্রা শুরু হয়। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে এর উচ্চতা ৬ হাজার ৪৬৩ ফুট। পরের বছর দেশটির আপেনজেল গ্রামের পাহাড়ি পরিবেশে দ্বিতীয় শাখা চালু হয়। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে এর উচ্চতা ৪ হাজার ফুট। পর্বতে বিছানা স্থাপনের জন্য জমি সমতল করে নির্মাণ শ্রমিকরা।

অসাধারণ উন্মুক্ত হোটেলে রয়েছে বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা। এখানে অতিথিদের সেবায় নিয়োজিত থাকেন একজন। যাকে সাধারণত বলা হয় রুম সার্ভিস। হোটেলের কাছেই একটি কেবিনে থাকেন তিনি। অতিথিদের জন্য সকালের নাশতা ও রাতের ডিনার তৈরি করেন।

হোটেলে রিমোট কন্ট্রোল বিহীন টেলিভিশন রয়েছে। এতে শুধু একটি বিশেষ টিভি চ্যানেল হাজির হয় অতিথিদের সামনে! রুম সার্ভিসের দায়িত্বে থাকা কর্মী নিজেই দিনের গুরুত্বপূর্ণ সংবাদ শিরোনাম, আবহাওয়ার পূর্বাভাস ও অন্যান্য তথ্য নিজের মুখে বলেন। তখন তিনি মুখের সামনে ধরে থাকেন

কিন্তু এমন উন্মুক্ত হোটেলে বৃষ্টি নামলে কী ঘটবে তা চিন্তার কারণ হতে পারে। উদ্যোক্তরা এর সমাধান ভেবে রেখেছেন। বৃষ্টির সময় অতিথিরা স্থানীয় খামারবাড়ি কিংবা চালাঘরে যান। প্রতিকূল আবহাওয়া থাকলে অতিথিরা শেষ মুহূর্তে বুকিং বাতিল করতে পারেন।

হোটেলটিতে স্বাভাবিকভাবেই বাথরুম নেই। এজন্য পাঁচ মিনিটের হাঁটা দূরত্বে গণশৌচাগারে যেতে হয় অতিথিদের। একটি হোটেলের ভাড়া প্রতি রাতে ৩০০ ডলার (২৬ হাজার টাকা)। অবকাশযাপনের জন্য এর চেয়ে ব্যতিক্রম জায়গা আর কী হতে পারে!

তথ্যসূত্র: বিজনেস ইনসাইডার