যশোর-৬, বগুড়া-১ আসনের উপ-নির্বাচনে প্রচার শেষ রোববার সকাল ৯টায়

প্রকাশিত: ১০:২৯ অপরাহ্ণ, জুলাই ১১, ২০২০

আসন্ন যশোর-৬ ও বগুড়া-১ আসনের উপ-নির্বাচনের প্রচার শেষ হচ্ছে রোববার (১২ জুলাই) সকাল ৯টায়।

গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ (আরপিও) অনুযায়ী প্রচার বন্ধের নির্দেশনা ইতোমধ্যে প্রার্থী ও তার সমর্থকদের জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

আগামী ১৪ জুলাই আসন দু’টিতে সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত উপ-নির্বাচনের ভোটগ্রহণ করবে ইসি।

আরপিও’র ৭৮ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, ভোটগ্রহণ শুরুর পূর্ববর্তী ৪৮ ঘণ্টা এবং ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার পরবর্তী ৪৮ ঘণ্টা সময়ের মধ্যে নির্বাচনী এলাকায় যেকোনো ধরনের সভা, সমাবেশ ও মিছিল, শোভাযাত্রা করা যাবে না।

অর্থাৎ রোববার সকাল ৯টা থেকে বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টা সব ধরনের প্রচার বন্ধ রাখতে হবে।

নির্বাচনী আইন অনুযায়ী, প্রচার বন্ধের নির্দেশনা অমান্য করলে জয়ী হওয়ার পরও কোনো প্রার্থীর প্রার্থীতা বাতিলের ক্ষমতা রাখে নির্বাচন কমিশন।

আসন্ন বগুড়া-১ (সারিয়াকান্দি-সোনাতলা) ও যশোর-৬ (কেশবপুর) আসনে উপ-নির্বাচন উপলক্ষে ভোটের আগে-পরে ৭২ ঘণ্টার জন্য বাইক চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। একই সঙ্গে ভোটের দিন সব ধরনের যন্ত্রযানও বন্ধ থাকবে।

নির্দেশনাটি বাস্তবায়নের জন্য গত সোমবার ইসির উপ-সচিব মো. আতিয়ার রহমান সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সচিবকে চিঠি পাঠিয়েছেন।

এতে বলা হয়, আগামী ১৪ জুলাই অনুষ্ঠেয় জাতীয় সংসদের ৩৬ বগুড়া-১ ও ৯০ যশাের-৬ শূন্য আসনের নির্বাচন উপলক্ষে ভােটগ্রহণের জন্য নির্ধারিত দিবসের পূর্ববর্তী মধ্যরাত অর্থাৎ ১৩ জুলাই মধ্যরাত ১২টা থেকে ১৪ জুলাই মধ্যরাত ১২টা পর্যন্ত বেবি ট্যাক্সি, অটোরিক্সা, ইজিবাইক, পিকআপ, টেম্পাে, ট্যাক্সি ক্যাব, কার, ইজিবাইক এবং স্থানীয় পর্যায়ের মাইক্রোবাস, বাস, বিভিন্ন যন্ত্রচালিত যানবান, জিপ, ট্রাক চলাচল বন্ধ থাকবে।

এছাড়া ১২ জুলাই মধ্যরাত ১২টা থেকে ১৫ জুলাই মধ্যরাত পর্যন্ত অর্থাৎ ৭২ ঘণ্টা মােটরসাইকেল চলাচলের উপর নিষেধাজ্ঞা বলবৎ থাকবে।

এই নিষেধাজ্ঞা রিটার্নিং অফিসারের অনুমতি সাপেক্ষে প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থ, তাদের নির্বাচনী এজেন্ট, দেশি-বিদেশি পর্যবেক্ষকদের (পরিচয়পত্র থাকতে হবে) ক্ষেত্রে শিথিলযােগ্য। নির্বাচনের সংবাদ সংগ্রহের কাজে নিয়ােজিত দেশি-বিদেশি সাংবাদিক (পরিচয়পত্র থাকতে হবে), নির্বাচনের কাজে নিয়ােজিত কর্মকর্তা-কর্মচারী, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য, নির্বাচনের বৈধ পরিদর্শক এবং কতিপয় জরুরি কাজ যেমন- অ্যাম্বুলেন্স, ফায়ার সার্ভিস, বিদ্যুৎ, গ্যাস, ডাক, টেলিযােগাযােগ ইত্যাদি কার্যক্রমে ব্যবহারের জন্য উল্লিখিত যানবাহন চলাচলের ক্ষেত্রে উক্ত নিষেধাজ্ঞা প্রযোজ্য হবে না। আবার জাতীয় মহাসড়ক, বন্দর ও জরুরি পণ্য সরবরাহসহ অন্যান্য জরুরি প্রয়োজনে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এরূপ নিষেধাজ্ঞা শিথিলের বিষয়ে প্রয়োজনীয় কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারবেন।

এছাড়া নৌ সচিবকে পাঠানো এ সংক্রান্ত নির্দেশনায় বলা হয়েছে-১৩ জুলাই মধ্যরাত ১২টা থেকে ১৪ জুলাই মধ্যরাত ১২টা পর্যন্ত সব ধরনের ইঞ্জিন চালিত নৌ চলাচল বন্ধ থাকবে। তবে জরুরি ও যথাযথ প্রয়োজনে রিটার্নিং কর্মকর্তা ও যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমতি সাপেক্ষে নৌ-যান ব্যবহার করা যাবে।

বগুড়া-১ আসন:
মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের পর আসনটির উপ-নির্বাচনের বৈধ ছয় প্রার্থীকে প্রতীক বরাদ্দ করেছিলেন রিটার্নিং কর্মকর্তারা। প্রার্থীরা হলেন- বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী সাবেক সংসদ সদস্য আবদুল মান্নানের সহধর্মিণী সাহাদারা মান্নান (নৌকা), বিএনপির একেএম আহসানুল তৈয়ব জাকির (ধানের শীষ), জাতীয় পার্টির মোকছেদুল আলম (লাঙ্গল), প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক দলের (পিডিপি) মো. রনি (বাঘ), বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের নজরুল ইসলাম (বটগাছ) ও স্বতন্ত্র ইয়াসির রহমতুল্লাহ ইন্তাজ (ট্রাক)।

এ নির্বাচনে মোট ৩ লাখ ৩০ হাজার ৮৯৩ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগের সুযোগ পাবেন।

গত ১৮ জানুয়ারি সাবেক সংসদ সদস্য আবদুল মান্নান মারা গেলে আসনটি শূন্য ঘোষণা করে সংসদ সচিবালয়। এরপর শূন্য আসনে নির্বাচনেন তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন।

যশোর-৬ আসন:
এ আসনে বৈধ তিন প্রার্থী প্রতীক পেয়েছিলেন। তারা হলেন- বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী শাহীন চাকলাদারকে (নৌকা), বিএনপির প্রার্থী আবুল হোসেন আজাদ (ধানের শীষ) ও জাতীয় পার্টির প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিব (লাঙ্গল)।

এ আসনে ২ লাখ ৩ হাজার ১৮ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগের সুযোগ পাবেন।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যশোর-৬ (কেশবপুর) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ইসমাত আরা সাদেক জয়ী হন। চলতি বছরের ২১ জানুয়ারি তিনি মারা যান। এর শুন্য আসবে নির্বাচনের তফসিল দেয় ইসি।